Law to Justice Uncategorized মানহানি নিয়ে পর্যবেক্ষণ ও সামাজিক বাস্তবতা:

মানহানি নিয়ে পর্যবেক্ষণ ও সামাজিক বাস্তবতা:

law to justice | defamation
মানহানি কি?

Penal Code 1860 সালের ধারা ৪৯৯ তে মানহানি সম্পর্কে বিধান উল্লেখ করা হয়েছে।http://bdlaws.minlaw.gov.bd/act-11/section-3540.html

যদি কোন ব্যক্তি কোন শব্দ সেটি মৌখিক হতে পারে অথবা পড়বে সে উদ্দেশ্যে, অথবা এমন কোনো চিহ্ন বা প্রকাশ্য উপস্থাপনের এর মাধ্যমে কোন ব্যক্তির বিরুদ্ধে তাকে ক্ষতি করার উদ্দেশ্যে অথবা জানেন যে ক্ষতি হবে অথবা বিশ্বাস করার কারণ রহিয়াছে যে সেই ব্যক্তির সম্মানের ক্ষতি হবে যদি এমন কোনো দোষারোপ তৈরি অথবা প্রকাশ করেন তাহলে তিনি ওই ব্যক্তির মানহানি করিয়াছেন বলে ধরা হবে।

আলোচনা:

১. যদি কোন ব্যক্তি অন্য কোনো ব্যক্তির বিরুদ্ধে দোষারোপ করিয়াছেন তবে তা সত্য সে ক্ষেত্রে ওই দোষারোপ মানহানি বলে গণ্য হবে না।

২. যদি কোন ব্যক্তি জানেন যে তিনি যে দোষারোপ করছেন তা মিথ্যা অথবা বিশ্বাস করার কারণ রহিয়াছে যে তা মিথ্যা তারপরও যার বিরুদ্ধে দোষারোপ করছেন তাকে ক্ষতি করার উদ্দেশ্যে এমন কোনো দোষারোপ প্রকাশ বা তৈরি করেন সেক্ষেত্রে সেটি মানহানি হবে এবং এটি একটি অপরাধ।

ল্লেখ্য মানহানি একজন মৃত ব্যক্তি, কোন কোম্পানি বা অ্যাসোসিয়েশন অথবা কালেকশন অফ পারসন এরও হবে যদি তা উপরে উল্লেখিত পদ্ধতিতে হয়ে থাকে।

আমাদের সমাজে মানহানির অভিযোগে খুব কম সংখ্যক মামলায় আদালতে দায়ের করা হয়ে থাকে তবে যে সংখ্যক মামলা আদালতে দায়ের করা হয় তারমধ্যে একটা অভিযোগ প্রতীয়মান হয় যে অনেক সচেতন মানুষ বলে থাকেন যে “তিনি মানহানির মামলা কেন করেছেন মানহানির বিপরীতে-

কেন দুই কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়েছেন তার মান-সম্মানের মূল্য দুই কোটি টাকা মাত্র? মানহানির কি মূল্য পরিমাপ করা যায়?

তার মানের কি এত মূল্য কম?

সমাজ ও রাষ্ট্রের অনেক সচেতন মানুষও কেন এই প্রশ্নগুলো উপস্থাপন করে তা আমার বোধগম্য নয়!

মানকে টাকায় মূল্য দেয়া যায় না তবে মানযে মূল্যহীন নয় সেটি প্রমাণ করার জন্যই মানহানির জন্য সচেতনতরা ক্ষতিপূরণ মামলা দায়ের করেন , এবং যদি তা আদালতে প্রমাণ করা যায় যে যেই দোষারোপটি করা হয়েছে তা মিথ্যা এবং আদালত যদি সন্তুষ্ট হয় সেক্ষেত্রে মানহানি ঘটিয়েছেন তিনি আদালতে দোষী সাব্যস্ত হন।

উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মিথ্যা দোষারোপ এর মাধ্যমে কোন ব্যক্তিকে মানহানি করার অপচেষ্টা বন্ধের জন্য অবশ্যই মানহানির মামলা দায়ের করা উচিত এবং সেটি প্রত্যেক নাগরিকের আইনগত অধিকার, এবং অপরাধকে না বলার প্রতিশ্রুতি প্রকাশ।

Writer

Nayem H Ovi

Founder of Law to Justice

nayemh2111@gmail.com

1 thought on “মানহানি নিয়ে পর্যবেক্ষণ ও সামাজিক বাস্তবতা:”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Related Post

visible

জমি কেনার পূর্বে করণীয়: পোস্ট ১জমি কেনার পূর্বে করণীয়: পোস্ট ১

জমি কেনার আগে জমির ক্রেতাকে জমির বিভিন্ন দলিল বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। বিশেষ করে জমির মালিকের মালিকানা বৈধতা ভালো করে যাচাই করতে হবে। অন্যথায় জমি কিনতে গিয়ে প্রতারণার শিকার হতে

আদেশ কিংবা রায় পক্ষগণের উপস্থিতিতে প্রকাশ্য আদালতে প্রদান করতে হবে- হাইকোর্ট।আদেশ কিংবা রায় পক্ষগণের উপস্থিতিতে প্রকাশ্য আদালতে প্রদান করতে হবে- হাইকোর্ট।

আদেশ কিংবা রায় পক্ষগণের উপস্থিতিতে প্রকাশ্য আদালতে প্রদান করতে হবে- হাইকোর্ট।  “দুর্নীতি দমন কমিশন বনাম পার্থ গোপাল বনিক এবং অন্যান্য” (ফৌজদারী আপীল নং-৪৬৮৮/২০২১) আপীলে গত ২৬/০৮/২০২১ইং তারিখে শুনানী শেষে বিচারপতি

অনলাইন প্রতারণা ও করণীয়অনলাইন প্রতারণা ও করণীয়

“অনলাইন” কারো কাছে উপার্জনের সুগম পথ আবারো কারো কাছে মরণ ফাঁদ।  বর্তমান সময়ে আমাদের প্রতিদিনের সকল কার্যক্রম ও সকল ধরনের বিজনেসই অনলাইন নির্ভর হয়ে যাচ্ছে। তাই আমরাও বিভিন্ন কাজের জন্যই