Law to Justice Uncategorized মুসলিম উত্তরাধিকার আইন

মুসলিম উত্তরাধিকার আইন

#শেয়ারার কারা: পবিত্র কোরআনে ১২ জনের অংশ নির্ধারিত করে দিয়েছে। যাদের আমরা শেয়ারার বলে থাকি। এই ১২ জন হলেন–

১. বাবা 

২. মা

৩. স্বামী 

৪. স্ত্রী 

৫.কন্যা 

৬. পুত্রের কন্যা 

৭. দাদা 

৮. দাদি  

৯. আপন বোন 

১০. বৈপিত্রেয় বোন 

১১. বৈমাত্রেয় বোন 

১২. বৈমাত্রেয় ভাই

এইবার আমাদের দ্বিতীয় পয়েন্টে আসি। প্রাথমিক উত্তরাধিকারী বা Primary Heirs কারা এবং তাদের অংশ কতখানি। আসুন জেনে নেয়া যাক–

প্রাথমিক উত্তরাধিকারী হলেন তারা, যারা কখনও সম্পত্তির উত্তরাধিকার থেকে বঞ্চিত হন না। এদের সংখ্যা ছয়। আর তারা হলেন-

১. স্বামী 

২. স্ত্রী

৩.বাবা

৪. মা

৫. কন্যা 

৬. পুত্র

আসুন এবার জেনে নেয়া যাক এদের অংশ সম্পর্কে

১. স্বামী/Husband 

 স্বামীর অংশ দুʼধরনের হয়ে থাকে। তা হলো- 

  ১/২ বা অর্ধেক অংশ এবং 

  ১/৪ বা এক-চতুর্থাংশ

#কখন ১/২ বা অর্ধেক অংশ পায়: যদি কোন সন্তান-সন্ততি না থাকে তবে মৃত স্ত্রীর সম্পত্তির ১/২ অংশ স্বামী পাবে।

#কখন ১/৪ বা এক-চতুর্থাংশ পায়: যদি সন্তান-সন্ততি থাকে তবে মৃত স্ত্রীর সম্পত্তির ১/৪ অংশ স্বামী অংশীদার হিসেবে পাবে।

২. স্ত্রী/Wife

স্ত্রীর অংশ দুʼধরনের হয়ে থাকে। তা হলো- 

১/৪ বা এক-চতুর্থাংশ এবং 

১/৮ বা এক-অষ্টমাংশ

#কখন১/৪ বা এক-চতুর্থাংশ পাবে: যদি কোন সন্তান-সন্ততি না থাকে তবে মৃত স্বামীর সম্পত্তির ১/৪ অংশ স্ত্রী পাবে।

#কখন১/৮ বা এক-অষ্টমাংশ পাবে: যদি সন্তান-সন্ততি থাকে তবে মৃত স্বামীর সম্পত্তির ১/৮ অংশ স্ত্রী অংশীদার হিসেবে পাবে।

এখানে উল্লেখ্য যে, সন্তান-সন্ততি বলতে শুধু নিজের ঔরশজাত বা গর্ভের সন্তানকে বুঝায় না এখানে স্বামী বা স্ত্রীর সকল সন্তানকে বুঝায়।

বিষয়টা একটু পরিষ্কার করা দরকার। ধরুন এক মহিলার প্রথমে এক জায়গাতে বিয়ে হওয়ার পর সেখানে দুইটা ছেলে-মেয়ে হয়। পরবর্তীতে যদি সেই মহিলার স্বামী মারা যায় বা তালাক প্রাপ্ত হয়ে অন্য আরেকজনের সাথে বিয়ে হয়। তাহলে দ্বিতীয় স্বামীর ঘরে কোন সন্তান না হলেও পূর্বের ছেলে মেয়ে থাকার কারণে স্বামীর অংশ হবে ১/৪ অংশ। 

অনুরূপ এক পুরুষের যদি দুইটা বৌ থাকে এবং এক বৌয়ের গর্ভের ছেলে-মেয়ে আছে অন্য বৌয়ের গর্ভের ছেলে-মেয়ে নাই। তাহলেও অন্য বৌ ও ১/৮ অংশ পাবে।

এখানে আরেকটা বিষয় জানা দরকার যে, একের অধিক স্ত্রী থাকলে তারা সমন্বয়ে ১/৪ অংশ বা ১/৮ অংশ পাবে এবং তা নিজেদের মধ্যে সমানভাবে ভাগ করে নিবে।

৩. বাবা/পিতা/Father

 পিতার অংশ তিন ধরনের হয়ে থাকে–

১/৬ অংশ,

১/৬+অবশিষ্টাংশ(Residuary) এবং

অবশিষ্টাংশভোগী(Residuary)

#কখন১/৬ অংশ পাবে: যদি মৃত ব্যক্তির পুত্র, পুত্রের পুত্র—— রেখে মারা যান তবে পিতার অংশ হবে ১/৬ অংশ।

#কখন১/৬+অবশিষ্টাংশ(Residuary) হিসেবে পায়: যদি মৃত ব্যক্তির কন্যা, পুত্রের কন্যা রেখে মারা যায় এবং কোন পুত্র বা পুত্রের পুত্র—- না থাকে তবে পিতার অংশ হবে ১/৬+অবশিষ্টাংশ। 

#কখন অবশিষ্টাংশভোগী (Residuary) হিসেবে পায়: যদি কোন সন্তান-সন্ততি না থাকে তবে মৃত ব্যক্তির সম্পত্তিতে পিতা অবশিষ্টাংশভোগী হিসেবে অংশ পাবে। 

 যেমন: এক মহিলা মারা গেছে তার স্বামী এবং পিতাকে রেখে। তাহলে স্বামীর অংশ হবে ১/২ অংশীদার হিসেবে আর অবশিষ্ট ১/২ পিতা পাবে অবশিষ্টাংশভোগী হিসেবে।

৪. মা/Mother

 মায়ের অংশ তিন ধরনের হয়ে থাকে—

১/৬,

১/৩ এবং 

অবশিষ্টাংশের ১/৩(1/3 of residue)

#কখন ১/৬ অংশ পায়: মায়ের অংশ ১/৬ হবে নিম্নোক্ত একটি শর্ত পূরণ করলে 

   *যদি মৃত ব্যক্তির সন্তান-সন্ততি থাকে, কন্যা, পুত্রের পুত্র—–

    *যদি মৃত ব্যক্তির দুইয়ের অধিক ভাই বা বোন থাকে। ভাই বা বোন আপন, বৈপিত্রেয় বা বৈমাত্রেয় হতে পারে।

    * যদি একজন ভাই ও একজন বোনও থাকে। এখানে একজন আপন বোন ও একজন বৈপিত্রেয় বোন থাকলেও প্রযোজ্য হবে।

#কখন১/৩ অংশ পায়: নিম্নোক্ত শর্ত পূরণ করলে মা ১/৩ অংশ পাবে–

  * যদি মৃত ব্যক্তির কোন সন্তান না থাকে

  * যদি মৃত ব্যক্তির একের অধিক ভাই বা বোন না থাকে

#কখন অবশিষ্টাংশের ১/৩ অংশ পাবে: এই ব্যতিক্রম অংশ শুধু দুটি ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য। যেগুলো হলো–

* যদি উত্তরাধিকারী হিসেবে স্বামী, বাবা ও মা কে রেখে কোন মহিলা মারা যান এবং

* যদি উত্তরাধিকারী হিসেবে স্ত্রী, বাবা ও মা কে রেখে কোনো পুরুষ মারা যান।

এই নীতি Umriyatin Rule হিসেবে পরিচিত।

৫. কন্যা/Daughter

কন্যার অংশ তিন ধরনের হয়ে থাকে–

১/২,

২/৩ এবং

অবশিষ্টাংশভোগী 

#কখন ১/২ অংশ পাবে: দুটি শর্ত পূরণ করলে এই অংশ পাবে। তা হলো- 

১। কোন পুত্র থাকবে না 

২। সে একাই থাকবে অর্থাত একমাত্র কন্যা হিসেবে অংশীদার হলে

#কখন ২/৩ অংশ পাবে: দুটি শর্তে এই অংশ পাবে-

১। কোন পুত্র থাকবে না

২। দুই বা তার অধিক কন্যা থাকলে

#কখন অবশিষ্টাংশভোগী হিসেবে পাবে:

কন্যার সাথে যদি পুত্র ও থাকে তবে কন্যা আর অংশীদার হিসেবে অংশ পায় না। তখন সে অবশিষ্টাংশভোগী হিসেবে পুত্রের সাথে ২:১ অনুপাতে অংশ পাবে। যাকে আমরা Tasib Rule বলে জানি।

৬. পুত্র/Son

পুত্রের জন্য পবিত্র কোরআনে কোনো অংশ নির্ধারণ করে দেওয়া হয়নি। তবে পুত্রের উপস্থিতিতে অনেক কুরআনিক অংশীদারদের অংশ কমে যায় আবার অনেকে পুরোপুরি বঞ্চিত হয়।

* পুত্রের উপস্থিতির জন্য অংশ কমে যায় এমন অংশীদার হলো–

  মা, স্বামী, স্ত্রী, দাদা, দাদি এবং কন্যা অংশীদার হিসেবে না পেয়ে অবশিষ্টাংশভোগী (Residuary) হিসেবে অংশ পায়। 

*পুত্রের উপস্থিতির জন্য উত্তরাধিকার থেকে বঞ্চিত হয় এমন অংশীদার হলেন—

ভাই ও বোন (আপন, বৈমাত্রেয় ও বৈপিত্রেয়)

Writer

Nayem H Ovi

Founder of Law to Justice

Email: nayemh2111@gmail.com

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Related Post

ফুলকোর্ট সভা ডেকেছেন প্রধান বিচারপতিফুলকোর্ট সভা ডেকেছেন প্রধান বিচারপতি

বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) বিকেল ৫টায় ভিডিও কনফারেন্সে এই সভা অনুষ্ঠিত হবে। আদালত চালু করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে ফুলকোর্ট সভা ডেকেছেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন।